Bonya

বন্যার বিচার না চাওয়া এবং ৫ পত্রিকার ভুল বোঝা

ছেলে হত্যার বিচার চান না- শনিবার সন্ধ্যায় একথা বলেছিলেন জঙ্গিদের হাতে জবাই হয়ে খুন হওয়া মুক্তচিন্তার প্রকাশক ফয়সাল আরেফিন দীপনের বাবা। সেরাতেই ‘আমিও বিচার চাই না’ শিরোনামে ফেইসবুকে একটি পোস্ট দেন জঙ্গিদের হাতে খুন হওয়া লেখক-ব্লগার অভিজিৎ রায়ের স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যা। গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকার টিএসসি মোড়ে যে জঙ্গি হামলায় অভিজিৎ প্রাণ হারান সেই একই হামলায় আহত হয়েছিলেন বন্যা।

বন্যার ফেইসবুক পোস্টটিকে ভিত্তি করে রোববার দেশের একাধিক বাংলা পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে খবর প্রকাশ হয়। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য পাঁচটি সংস্করণ হলো: প্রথম আলো, কালের কণ্ঠ, ইত্তেফাক, সমকাল, যুগান্তর।

পাঁচ অনলাইন সংস্করণের খবরের শিরোনাম:
    আমিও বিচার চাই না: অভিজিতের স্ত্রী [প্রথম আলো]
    আমিও বিচার চাই না: অভিজিৎ রায়ের স্ত্রী [কালের কণ্ঠ]
    আমিও বিচার চাই না: অভিজিৎ রায়ের স্ত্রী বন্যা [ইত্তেফাক]
    অভিজিতের স্ত্রী বন্যার স্ট্যাটাস
    আমিও বিচার চাই না [সমকাল]
    কোনোদিন অভিজিৎ হত্যার বিচার চাইতে আসবো না: বন্যা [যুগান্তর]

যুগান্তর ছাড়া বাকি চারটি অনলাইন সংস্করণই বন্যার পোস্টের শিরোনামকেই খবরের শিরোনাম করেছে। তবে সংবাদকর্মী হিসেবে আমার মনে হয়নি ‘বিচার না চাওয়াটাই’ ওই পোস্টে বন্যার শেষ কথা। পাঁচ প্যারাগ্রাফের ওই পোস্টের প্রায় পুরোটা জুড়েই বন্যা বলেছেন কেন বিচার চান না। বলেছেন কেন বিচার চেয়ে লাভ নেই। পোস্টের একেবারে শেষের প্যারাগ্রাফটি এমন:

    এদেশে আদালতে বিচার হয়না সেটা আমরা জেনে গেছি। ইদ্রিসদের জামিনে ছেড়ে দেওয়া হয় সেটাও জানি। ছোট খাটো ভাড়াটে খুনীদের ধরে এনে প্রেস রিলিজের প্রহসন করা হয়। দীপনের বাবা ঠিকই বলেছেন, এটা রাজনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক। আমি আরেকটু যোগ করে বলবো এটা বৈশ্বিক এবং জাতীয় রাজনীতি, অর্থনীতির এবং সংস্কৃতির সম্মিলিত যোগ বিয়োগের ফলাফল। মৌলবাদ বলুন, সাম্রাজ্যবাদ বলুন, এদের কারোরই শক্তি কম নয়, আর ওদের সম্মিলিত শক্তির তো কোন তুলনাই নেই আজকের পৃথিবীতে। আজকে আমাদের দেশে যা ঘটছে তা পূর্বপরিকল্পিত, বহুদিনের চাষের ফসল। আমরা ওদের জায়গা করে দিয়েছি, উর্বর জমিগুলো সব খালি করে দিয়েছি। সার, পানি দিয়ে বড় হয়ে ওঠার সুযোগ করে দিয়েছি। এদের হাত অনেক লম্বা, এদের ব্যাপ্তি অনেক গভীর। শুধু কথায় আর কিছু হবেনা, এদের রুখতে হলে ভিতর থেকে সব কিছু ভেঙ্গেচুরে বদলাতে হবে। সবকিছু নষ্টদের অধিকারে চলে যাওয়ার আগেই সেটা করতে হবে।

শেষের দুই লাইনে তিনি বলেছেন মূল কথাটা: তিনি ডাক দিয়েছেন সবাইকে, ডাক দিয়েছেন এক ঐক্যের। মনে করিয়ে দিয়েছেন দেরি হওয়া সত্ত্বেও এখনই সেই ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধের শেষ সময়।

এই যে বন্যার শেষ দুই বাক্যে দল বেঁধে রুখে দাঁড়ানোর ডাক- তা পাঁচটি দৈনিকের কোনোটির অনলাইন সংস্করণই বুঝে উঠতে সক্ষম হয়নি। যদিও প্রথম আলো ও সমকালের খবরে ওই দুটি বাক্যও ছিলো শেষের দিকে। বাকি তিন অনলাইনে ওই বাক্যগুলি ছিলোই না। তারা ব্যস্ত ছিলো ‘আমিও বিচার চাই না’ শিরোনামটি প্রতিষ্ঠার কাজে। পুরো পোস্টে বন্যা কী বার্তা দিলেন তা বোঝার দায় তো আর সাংবাদিকের নয়।

কালের কণ্ঠের মুদ্রিত সংস্করণে অবশ্য বন্যার পোস্ট থেকে কোনো খবর তৈরি করা হয়নি। পোস্টটির পুরোটাই একটি অভিমত প্রকাশ করা হয়। প্রথম আলোর মুদ্রিত সংস্করণে ওই পোস্টভিত্তিক কোনো খবর বা অভিমত প্রকাশ হয়নি।


বন্যা আহমেদের আমিও বিচার চাই না শিরোনামের পুরো পোস্টটি পড়তে ক্লিক করুন

Advertisements

মন্তব্য?

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s