Niloy_Neel

চাপাতিপ্রবণ সময়, নিহত ব্লগারের স্ত্রী এবং প্রিয়ডটকম

দেশে প্রিয়ডটকম নামে একটা ইন্টারনেটভিত্তিক প্রকাশনা আছে। এই প্রকাশনাটি একটি গুরুদায়িত্ব পালন করছে নিহত ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপাধায়ের স্ত্রী আশা মনি বিষয়ে। প্রকাশনাটি আশা মনিকে কয়েকটি খবর প্রকাশ করেছে নিলয় খুন হওয়ার পর।

খবরগুলি কী: ক) নিলয়কে ঢাকায় ফিরে যেতে বারণ করেছিলেন তার মা, খ) ব্লগার নিলয়ের শেষকৃত্যে ছিলেন না স্ত্রী আশা মনি (ভিডিও)। খবর দুটি এমন ভাষায় এমন ভঙ্গিতে লেখা যা পড়ে বিরক্তি জাগে। প্রিয়ডটকমকে খবর প্রকাশের ক্ষেত্রে অপেশাদার একটি মাধ্যম বলে মনে হয়।

প্রথম খবরের প্রথম প্যারাগ্রাফ: “আটমাস আগে পিরোজপুর সদর উপজেলার টোনা ইউনিয়নের চলিশা গ্রামে নিজের বাড়িতে Niloy_Neelগিয়েছিলেন ব্লগার নিলয় নীল। ঈদের এক সপ্তাহ পর বাড়ি থেকে ঢাকায় আসেন তিনি। তাকে ঢাকায় ফিরতে নিষেধ করেছিলেন তার মা। কিন্তু বিসিএসের প্রস্তুতির কথা বলে ঢাকায় চলে আসেন তিনি।”

ছেলেকে ঢাকায় ফিরতে তার মা নিষেধ করতেই পারেন। তা নিয়ে কার কী বলার আছে। কিন্তু ওই বাক্যের পর প্রিয়ডটকম যে-বাক্যটি লিখেছে [কিন্তু বিসিএসের প্রস্তুতির কথা বলে ঢাকায় চলে আসেন তিনি।] তার অর্থ কী? তারা বলছে, “বিসিএসের প্রস্তুতির কথা বলে ঢাকায় চলে আসেন” নিলয়। এই কথার অর্থ পাঠক হিসাবে আমার কাছে যা দাঁড়ায় তা এরকম: নিলয় বিসিএসের প্রস্তুতির কথা বলে ঢাকায় ফিরে এলেও সেটি তার ঢাকায় আসার মূল কারণ নয়।

এই যে আরোপিত সন্দেহমূলক বাক্যটি, এটি কেন লিখল প্রিয়ডটকম? নিলয় অন্য কোনো কারণে ঢাকায় ফিরে এসে থাকতে পারে- এরকম বাস্তবতায় ওই বাক্য লিখতে পারে তারা। আর ওই বাক্য যেহেতু লিখেছেই সেহেতু নিলয় আসলে কেন ঢাকা ফিরে এসেছিলেন সেই তথ্যও পাঠককে দেয়ার দায়ও প্রিয়ডটকমের। কিন্তু ওই খবরে কোথাও বলা নেই নিলয় আসলে কেন ঢাকা ফিরে এসেছিলেন। যে-বিষয়টি ইন্টারনেট-প্রকাশনা প্রিয়র জানা নেই সেই বিষয়ে সন্দেহ কেন ছড়ালো তারা?

কেনই-বা করবে! তাদের আগ্রহের মূল জায়গা তো হলো আশামনিকে নিয়ে বিতর্ক তৈরি!

এবার পড়ুন ওই খবরেরই দ্বিতীয় প্যারাগ্রাফে: “রাজধানীর গোড়ানের বাসায় নিলয় স্ত্রী সহ থাকতেন। হত্যার ঘটনায় অজ্ঞাতনামা চারজনকে আসামি করে যে মামলা হয়েছে তার বাদী আশামনি। তিনি নিলয়ের স্ত্রী হিসেবে মামলাটি করেছেন। আশামনির বাবার নাম শামসুদ্দিন। মামলার এজাহারে নিলয় নীলের নাম লেখা হয়েছে নীলাদ্রি চ্যাটার্জি। বাবার নাম তারাপদ চ্যাটিার্জি। তবে তার বোন জয়শ্রী চট্টোপাধ্যায় গোপা দাবি করেন, ‘নিলয় বিয়ে করেছে এই খবর আমরা জানিনা।'”

নিলয়ের স্ত্রী হিসেবে মামলাটি করেছেন আশা মনি- এই বাক্যের মানে কী? মানে কি এই যে আশা মনি আসলে নিলয়ের স্ত্রী নন? এর উত্তরও প্রিয়ডটকমের কাছে নেই। তবে তাদের কাছে আছে আরো ধোঁয়াশা সৃষ্টি করা বাক্য যেখানে বলা হচ্ছে: আশামনির বাবার নাম শামসুদ্দিন। হ্যাঁ, আশামনির বাবার নাম শামসুদ্দিন হতেই পারে। নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় আশামনিকে বিয়ে করতেই পারেন। এটা যে অসম্ভব কিছু না তা কি প্রিয়ডটকমে কর্মরত মানুষদের জানা নেই? পাঠক এবার খেয়াল করুন ওপরের প্যারাগ্রাফের শেষ বাক্যটি।

দ্বিতীয় প্যারাগ্রাফটি পড়ে স্পষ্ট হয়, প্রিয়ডটকম আসলে হরফে-না-লিখে কোন্ কথাটি পাঠকের কাছে চালান করতে চাইছে। তারা বলতে ইঙ্গিত করছে যে, নিলয় ও আশামনির বিয়ে হয়নি। দেখা যাচ্ছে তারা দুজন দুই ধর্মের অনুসারী। তাদের বিয়ে হয়েছে কি না তা স্পষ্ট করতে বলতে পারেন দু’জন- নিলয় ও আশামনি। নিলয় তো খুন হয়ে সব প্রশ্নোত্তরের বাইরে চলে গেছেন। বেঁচে আছেন আশামনি।

আশামনিকে নিয়ে বিতর্ক অব্যাহত আছে বলেও দাবি করেছে ইন্টারনেট-প্রকাশনাটি।

প্রিয়ডটকমের যদি এতই আগ্রহ থাকে নিলয়-আশামনির বিয়ের বৈধতা নিয়ে তবে তারা আশামনির সাথে কথা বলছে না কেন? কেন তার সঙ্গে কথা বলে কোনো ‘খবর’ প্রকাশ করছে না? কেন তারা নিলয়-আশামনির বিয়ের নথি ‘আবিষ্কারের’ সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করছে না?

কেনই-বা করবে! তাদের আগ্রহের মূল জায়গা তো হলো আশামনিকে নিয়ে বিতর্ক তৈরি! যা তারা সফলভাবে করার চেষ্টা চালায় ‘ব্লগার নিলয়ের শেষকৃত্যে ছিলেন না স্ত্রী আশা মনি’ শিরোনামের ‘খবরে’। আশামনিকে নিয়ে বিতর্ক অব্যাহত আছে বলেও দাবি করেছে ইন্টারনেট-প্রকাশনাটি।

নিলয়ের মাসিকে উদ্ধৃত করে অপেশাদারভাবে প্রিয়ডটকম বলেছে, “আমরা বিশ্বাস করি না নিলয় বিবাহিত ছিল। সে যদি বিবাহিত স্ত্রী হতো তার গায়ে কোনো আঁচড় লাগলো না। একটু রক্তের দাগ লাগলো না! এটা কি করে হয়? পুলিশ যখন ওর লাশ ওই বাড়ি থেকে নিয়ে যায় তখনও তো ওই মহিলা কাছে যায়নি।”

“তিনি আরো বলেন, ‘এ খুনের সাথে ওই মহিলা জড়িত থাকতে পারে। নিলয়ের হত্যার আগে পরে আমাদের ফোনও তো দিতে পারতো।'”

প্রিয়ডটকম পেশাদার কোনো সংবাদমাধ্যম হলে এধরনের তথাকথিত খবরের পেছনে ছুটতো না। অপেক্ষা করতো পুলিশি তদন্ত এবং পুলিশের বক্তব্যের।

[পেশাদারিত্বের অভাব থাকায় প্রিয়ডটকমের ‘খবর’ দুটির লিঙ্ক এই পোস্টে সংযোজন করা হয়নি]

Advertisements

মন্তব্য?

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s