মান্নার রাষ্ট্রদ্রোহ, বিডিনিউজের অডিও, ইউটিউবের ভুয়া অ্যাকাউন্ট

মাহমুদুর রহমান মান্নার দুটি ফোনালাপ প্রকাশ হয়েছে। ফোনালাপ দুটির বিষয়বস্তু ইন্টারনেটে বাংলা পড়তে জানেন এমন কোনো বাংলাদেশির অজানা নেই। বাংলাভাষী এবং বাংলাদেশের মানুষ হিসাবে আমিও তা জানি। জানি না শুধু কয়েকটা প্রশ্নের জবাব।

দুই ফোনালাপে মান্না যে উস্কানিমূলক সহিংস রাষ্ট্রদ্রোহমূলক কথাবার্তা বলেছেন তার জন্য সরকার কি তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেবে? ফোনালাপে জড়িত অপর দুই ব্যক্তিও (সাদেক হোসেন খোকা এবং অজ্ঞাত একজন) কি আইনের আওতায় আসবেন না? ঘটনার পর দুই দিন পার হয়ে গেলেও এসব প্রশ্নের কোনো জবাব এখনো পাওয়া যায়নি। তবে সরকার ব্যবস্থা নেবে বলেই একজন নাগরিক হিসাবে আমাকে আস্থাশীল থাকতে হবে।

২.

ফোনালাপ নিয়ে প্রথম খবর প্রকাশ করে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। ২২ ফেব্রুয়ারি রাত সোয়া ১০টার দিকে তারা প্রথম খবরটি প্রকাশ করে কথোপকথন ফাঁস: ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে লাশ চান মান্না’ শিরোনামে। বিডিনিউজের খবরের শেষে লেখা ছিল (অডিওসহ বিস্তারিত আসছে)। দুই/তিন প্যারাগ্রাফের খবরটি দেখেই আমি ইউটিউবে মান্নার অডিও/ভিডিও খুঁজি। এবং খুঁজতেই একটি অডিও পেয়েও যাই। আমার বিডিনিউজের ওই ট্রেলার শীর্ষখবর দেখা আর মান্নার ইউটিউব অডিও খুঁজে পাওয়ার মধ্যে সময়ের ব্যবধান ছিল ৩০ থেকে ৬০ সেকেন্ড। বিডিনিউজের খবরে প্রথমে বলা হয়, কথোপকথনের টেপ তাদের হাতে রয়েছে। তবে পরে সেই বাক্য সরিয়ে নেয়া হয়।

ইউটিউবে অডিওটি প্রকাশ হয় গ্লোবাল লিক্স নামের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে ওই ২২ ফেব্রুয়ারি তারিখেই। একইদিন ওই অ্যাকাউন্ট থেকে দ্বিতীয় অডিওটিও প্রকাশ করা হয়। গ্লোবাল লিক্স নামে ইউটিউবের ওই অ্যাকউন্টটি খোলাই হয় ২২ ফেব্রুয়ারি। অ্যাকাউন্টটির পরিচিতি লেখা হয়েছে ইংরেজিতে।

Fake-Global-Leaks-Account-Youtube
ইউটিউবে গ্রোবাল লিক্সের নামে ভুয়া অ্যাকাউন্ট

এবং যা লেখা হয়েছে তা হলো ইতালির মিলানভিত্তিক গ্লোবাল লিক্স নামের একটি ডিজিটাল মানবাধিকার সংস্থার ‘অ্যাবাউট আস’ সেকশনের লেখার হুবহু নকল। মান্নার ফোনালাপের অডিও-থাকা-ইউটিউব-অ্যাকাউন্টটিকে পুরো বৃত্তান্ত না জেনে প্রথম দর্শনে যে কেউ ইতালির গ্লোবাল লিক্সের অ্যাকাউন্ট ভাবলেও কিছু করার নেই। কিন্তু আসল গ্লোবাল লিক্সের হোমপেইজে গিয়ে দেখলাম সেখানে তাদের টুইটার এবং ফেইসবুক পেইজের লিঙ্ক রয়েছে। তবে ইউটিউবে তাদের কোনো অ্যাকাউন্ট নেই।

৩.

রাষ্ট্র আমার ফোনালাপ শুনতে/রেকর্ড করতে পারে কি না তা নিয়ে দুনিয়া জুড়ে বিতর্ক চলছে। পক্ষে-বিপক্ষে দুদিকেই শক্ত শক্ত যুক্তি শানানো হলেও সবার জন্য গ্রহণযোগ্য কোনো সমাধান এখনো আসেনি।

রাষ্ট্র নামের একটা ব্যবস্থা টিকিয়ে রাখতে হলে ব্যক্তির স্বাধীনতায় কোনো কোনো ক্ষেত্রে রাশ টানতেই হয়। নাহয় ধরে নিলাম, টেলিফোন-ইমেইল-সোশ্যাল মিডিয়া সেইসব ক্ষেত্রেরই একটি। এগুলো হলো সেইসব ক্ষেত্র যেখানে রাষ্ট্র নজরদারি করতে পারে। সেই নজরদারি রাষ্ট্র করবে রাষ্ট্রের অর্থাৎ সমষ্টির জন্য সম্ভ্যাব্য হুমকি চিহ্নিত এবং তা মোকাবেলার জন্য। সেই নজরদারিতেই ধরা পড়ে যাবেন, এবং ধরা পড়ে গেছেন মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি যা বলেছেন তা কোনোভাবেই একজন শান্তিকামী সুস্থ মানুষের চাওয়া হতে পারে না। কাজেই এজন্য তাকে বিচারের মুখোমুখি হতে হবে। এক্ষেত্রে রাষ্ট্র তাকে সরাসির মামলা করে গ্রেফতার করতে পারত। কিংবা প্রয়োজনে গ্রেফতারের পরও মামলা করতে পারত।

নজরদারির সংস্থা কিংবা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা সংবাদ সম্মেলন করে মান্নার কথোপকথন শোনাতে পারত। তারা একইভাবে মান্নার দুরভিসন্ধির কথা সংবাদ মাধ্যমকে, দেশের মানুষকে জানাতে পারত। এবং এই দুরভিসন্ধির অভিযোগে তাকে গ্রেফতারও করতে পারত। আর এই সবকিছুই হতো একটি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে এবং প্রকাশ্যে, দেশবাসীর চোখের সামনে।

কিন্তু তা না হয়ে কী হলো? একটি সংবাদমাধ্যম এবং একটি ইউটিউব অ্যাকাউন্টে কথোপকথন ‘ফাঁস’ হলো। এমন একটি ইউটিউব অ্যাকাউন্টে ‘ফাঁস’ হলো যার কোনো বিশ্বাসযোগ্যতাই নেই। আর ‘ফাঁস’ হওয়ার একদিন পর মান্নাকে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ধরে নেয়া হলো। এবং ধরে নেয়ার পর তাকে ফেরত দিল কারা? ফেরত দিল র্যাব! অথচ মান্নার পরিবার এবং দেশের সব মিডিয়া যখন সারাদিন চিৎকার করে চলেছে তখন র্যাব চুপ ছিল। তারা কিছুই বলেনি।

তাহলে ফোনে ওই নজরদারি কি রাষ্ট্রের কোনো সংস্থা করেনি? অন্য কেউ করেছে? করে থাকলে তারা কেন ইউটিউবে ভুয়া অ্যাকাউন্টে প্রকাশের পাশাপাশি একটি সংবাদমাধ্যমকে অডিও ক্লিপটি সরবরাহ করবে? আর নজরদারি যদি রাষ্ট্রের কোনো সংস্থাই করে থাকে তাহলে প্রশ্ন তারা প্রকাশ্য স্বচ্ছ ও আইনি পথে মান্নাকে গ্রেফতারের প্রক্রিয়ায় যায়নি কেন?

Advertisements

মন্তব্য?

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s